গাজায় প্রতিদিন মারা যাচ্ছেন ৬৩ জন নারী 

আন্তর্জাতিক নারী দিবস

0
19
ফাইল ফটো

অনলাইন: আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে গাজায় নারীদের ওপর চলা ভয়াবহ নির্মমতার চিত্র স্মরণ করিয়ে দিয়েছে জাতিসংঘের ফিলিস্তিন বিষয়ক শরণার্থী সংস্থা (ইউএনআরডব্লিউএ)। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে করা এক পোস্টে সংস্থাটি জানিয়েছে, যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে অবরুদ্ধ উপত্যকাটিতে প্রতিদিন ৬৩ জন নারী প্রাণ হারাচ্ছেন। সংস্থাটি জানায়, সেখানে থাকা নারীরা প্রতিদিন যুদ্ধের ভয়াবহ পরিণতি ভোগ করছেন। ইসরায়েলের হামলায় এখন পর্যন্ত অন্তত নয় হাজার নারী প্রাণ হারিয়েছেন। এই সংখ্যা আরও বেশি হতে পারে কেননা ধ্বংসস্তুপের নীচে চাপা পড়েছে আরও বহু মানুষ। 

ইউএনআরডব্লিউএ গত ২ জানুয়ারি এক বিবৃতিতে এসব তথ্য জানায়। ওই বিবৃতিতে আরও বলা হয়, গাজার বেশিরভাগ নারীরা জানিয়েছেন, পরিবারের অন্তত একজনকে না খেয়ে থাকতে হচ্ছে। এদিকে ইউএন উইমেন বলেছে, পরিবারে না খেয়ে থাকাদের মধ্যে ৯৫ শতাংশই মায়েরা। তাঁরা বাচ্চাদের খাওয়ানোর জন্য অন্তত একবেলা না খেয়ে থাকছেন। ১০ জনের মধ্যে ৯ জন নারী জানিয়েছেন, পুরুষদের তুলনায় খাবার পাওয়া তাঁদের জন্য অনেক কঠিন। কেউ কেউ এখন ধ্বংসস্তূপের নিচে, ডাম্পস্টারে বা অন্যান্য স্থানে খাবারের জন্য খোঁজাখুঁজি করছেন।

গত ৭ অক্টোবরের পর গাজায় ৩০ হাজার ৮৭৮ ফিলিস্তিনির মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে ৭২ হাজার ৪০২ জন। এদিকে অধিকৃত পশ্চিম তীরে বসতি স্থাপনে ৩ হাজার ৪০০ টিরও বেশি নতুন বাড়ি স্থাপনের চূড়ান্ত অনুমতি দিয়েছে দখলদার ইসরায়েল। প্রায় ৭০ শতাংশ বাড়ি তৈরি করা হবে জেরুজালেমের পূর্বে মা’লে আদুমিমে। বাকিগুলো বেথলেহেমের দক্ষিণে কাছাকাছি কেদার ও এফরাতে। নাম না প্রকাশের শর্তে ইসরায়েলের এক মন্ত্রী এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ওই মন্ত্রী বলেছেন, দুই সপ্তাহ আগে মালে আদুমিমের কাছে ফিলিস্তিনের হামলার জবাবে এ নির্মাণকাজ শুরু করা হবে। এদিকে, দলখদার রাষ্ট্রের এই সিদ্ধান্তের চরম নিন্দা জানিয়েছে ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ। অন্যদিকে, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের বেশির ভাগ অংশই ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডে ইসরায়েলি বসতি স্থাপনের বিষয়টির বিরোধিতা করে আসছে। কিন্তু ইসরায়েল কারও আপত্তি না মেনে বসতি স্থাপন করেই চলেছে।