38 C
Dhaka
Thursday, April 25, 2024

সখীপুরে বর্তমান এমপির অনুসারীদের হামলায় সাংবাদিকসহ আহত ৯

নিজস্ব প্রতিবেদক: টাঙ্গাইলের সখীপুরে সাবেক এমপি ও...

সখীপুরে এক প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড়, জেলা শিক্ষা অফিসের তদন্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক: টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলার লাঙ্গুলিয়া উচ্চবিদ্যালয়ের...

সখীপুরে শালবন ছাত্র কল্যাণ সংসদের কমিটি গঠন 

নিজেস্ব প্রতিবেদক: সখীপুরের কাকড়াজান ইউনিয়নে বড়বাইদ পাড়ায়...

যেসব রোজাদারের রোজা বিফলে যাবে

অন্যান্যজীবনধারাযেসব রোজাদারের রোজা বিফলে যাবে

রোজা ইসলামের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বিধান। একজন রোজাদার মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যেই সুবহে সাদিক থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত পানাহার ও জৈবিক চাহিদা পূর্ণ করা থেকে বিরত থাকে। নিঃসন্দেহে এটি অনেক বড় আমল। কিন্তু এ মহান আমলটির দাবি হলো, একে অন্যান্য গুনাহের কলুষতা থেকেও পবিত্র রাখতে হবে। অর্থাৎ, রোজা রেখে এমন কোনো গুনাহে লিপ্ত হওয়া যাবে না, যা রোজার পবিত্রতা ও মাহাত্ম্য নষ্ট করে দেয়।

আমাদের সমাজে এমন কিছু মানুষ দেখতে পাই, যারা রোজা রেখেও আরেকটি ফরজ ইবাদত নামাজ ছেড়ে দেয়। রোজা রাখা সত্ত্বেও অন্যের ওপর জুলুম থেকে বিরত হয় না। সুদ, ঘুষ ও হারাম ভক্ষণের মতো ভয়াবহ পাপ থেকে নিজেকে নিবৃত্ত রাখতে পারে না। রোজা রেখেও কিছু মানুষ মাপে কম দেয়। রোজার মতো মহান আমলটি করা সত্ত্বেও গিবত ও পরনিন্দা, চোগলখুরি, অপর ভাইয়ের সম্মানহানি ইত্যাদিতে কিছু মানুষ ব্যস্ত সময় কাটায়।

সত্যি কথা হলো, এ ধরনের রোজাদারদের রোজার কোনো মূল্য আল্লাহর কাছে নেই। বরং এটি নিছকই কিছু সময় ক্ষুধার্ত থাকা। আর কিছু নয়।

এ প্রসঙ্গে কিছু হাদিসে বর্ণিত হয়েছে। হজরত আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, নবী (সা.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি রোজা রাখা সত্ত্বেও মিথ্যা কথা বলা এবং মিথ্যার ভিত্তিতে কাজ করা ছাড়তে পারেনি, তার পানাহার ত্যাগের আল্লাহর কোনো প্রয়োজন নেই।’ (বুখারি: ১৯০৩)

হজরত আবু হুরাইরা (রা.) থেকে বর্ণিত আরেক হাদিসে মহানবী (সা.) বলেন, ‘রোজা হলো বান্দার জন্য ঢালস্বরূপ, যতক্ষণ না এটাকে সে ভেঙে না ফেলে।’ বলা হলো, ‘এটা কীভাবে ভাঙা হয়?’ নবীজি (সা.) বললেন, ‘মিথ্যা অথবা গিবত তথা পরনিন্দার মাধ্যমে।’ (আল মুজামুল আওসাত: ৪৫৩৬)

হজরত আবু হুরাইরা (রা.) আরেক বর্ণনায় বলেন, নবী (সা.) এরশাদ করেন, ‘অনেক রোজাদার এমন আছে, রোজা থেকে তার প্রাপ্য কেবলই ক্ষুধার্ত থাকা ও পিপাসার্ত থাকা। এবং অনেক রাতের নামাজ আদায়কারী এমন আছে, যাদের এ নামাজের অংশ শুধুই দাঁড়িয়ে থাকা।’ (সহিহ ইবনে হিব্বান: ৩৪৮১)

অর্থাৎ রোজার শিষ্টাচার বজায় না রাখার কারণে এবং রোজার সম্মান বিনষ্ট করার কারণে আল্লাহর কাছে সেটা আর গৃহীত হয় না। ফলে সেটা একেবারেই মূল্যহীন হয়ে যায়।

যেসব গুনাহের কথা একটু আগে উল্লেখ করা হয়েছে, এগুলো সব সময়ই ভয়ংকর কবিরা গুনাহ। তবে রমজান মাসে রোজা রেখে করা হলে সেটার ভয়াবহতা আরও বহুগুণ বেড়ে যায়। যেখানে রোজার পুরস্কার স্বয়ং আল্লাহ তাআলা নিজ হাতে প্রদান করবেন বলে ওয়াদা করেছেন, সেখানে যদি রোজার মাহাত্ম্যকে ভূলুণ্ঠিত করা হয়, তবে যে সেটা কল্যাণকর কিছু বয়ে আনবে না—তা বলাই বাহুল্য।

রমজানে গুনাহ থেকে বেঁচে থাকা সহজ। কেননা, ব্যাপকভাবে মানুষের মধ্যে তখন নেক আমলের একটা প্রতিযোগিতা লক্ষ করা যায়। সবাই সম্মিলিতভাবে কোনো কাজ করলে সেটা অত্যন্ত সহজ হয়ে যায়। এ ছাড়া হাদিসের ভাষ্য অনুযায়ী, অবাধ্য শয়তানদের রমজান মাসে বন্দী করে রাখা হয়। ফলে শয়তান কুমন্ত্রণা দেওয়ার সুযোগ পায় না। পাশাপাশি ক্ষুধার্ত থাকার কারণে পাপের প্রতি মন ধাবিত হয় না। কিন্তু মানুষের কুপ্রবৃত্তি তখনো সক্রিয় থাকে। তাই আমাদের উচিত হলো, রোজার সম্মান বজায় রেখে সকল প্রকার গুনাহ থেকে নিজেকে নিবৃত্ত রাখা।

-লেখক: আবদুল আযীয কাসেমি, শিক্ষক

Check out our other content

Check out other tags:

Most Popular Articles